1. admin@channel21tv.com : channel21tv.com :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন

একযুগ ধরে, অবহেলিত বারহাট্টা উপজেলার “রাণীগাঁও অটিজম একাডেমি।

রিপন কান্তি গুণ, বারহাট্টা উপজেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১৪৮ বার পঠিত

মানুষ মানুষের জন্যে…….

জীবন জীবনের জন্যে…….
একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ?

 বাস্তবিক অর্থে, আমরা সবাই যখন সুস্থ-সবল-মেধাবী শিশুদের উন্নয়নে কাজ করতে উৎসাহ দেখাই- সেখানে, নেত্রকোনা জেলাধীন বারহাট্টা উপজেলার একদল শিক্ষিত ও উদ্দমী, হৃদয়বান যুবক এগিয়ে আসে সমাজের অবহেলিত দরিদ্র ও প্রতিবন্ধী শিশুদের সেবায়।  নিজেরা ব্যক্তিগত চাঁদা তুলে, সেই টাকায় গড়ে তুলে রাণীগাঁও অটিজম একাডেমি।

 

নেত্রকোনা জেলাধীন বারহাট্টা উপজেলার চিরাম ইউনিয়নে এই একাডেমী প্রতিষ্ঠার একযোগ পূর্তী হয়েছে এই ডিসেম্বরে।

কিন্তু দুঃখের বিষয় আজো সরকারের সু-দৃষ্টি লাভের আশায় বুকবেঁধে ছিল। এমপিওভূক্ত হবে, শিক্ষকরা সরকারী বেতন-ভাতা পাবে এবং শিশুরা পাবে উন্নত শিক্ষার পরিবেশ । আজ যেন সবই হতাশার অন্তরালে তলিয়ে যেতে বসেছে।

 

জানা যায়, বারহাট্টা উপজেলার একদল হৃদয়বান যুবক ব্যক্তিগত অর্থে রাণীগাঁও অটিজম একাডেমিটি প্রতিষ্ঠা করেন । বিগত ২০১০ সালের ১ জানুয়ারী একাডেমির যাত্রা শুরু হয়। পরে তারা একাডেমির জন্য নিজস্ব জায়গা ক্রয়, এই জায়গায় আধা-পাকা ভবন নির্মাণ ও আসবাবপত্র সংগহ করে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করেন। ২০১৮ সালে তৎকালীন উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় একাডেমির এমপিওভূক্তির জন্য “ডিও” প্রদান করেন।

এরপর একই বছরের ৮আগস্ট ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার, অতিরিক্ত সচিব গোলাম ইয়াহিয়া, নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক, বারহাট্টা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সমাজ সেবা অফিসার সরেজমিনে একাডেমি পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

পরবর্তী ২০২০ সালে ১ জানুয়ারী উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার পূণরায় একাডেমি পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন। সর্বশেষ গত ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারী সরকারী একাডেমির অনুমোদন ও এমপিওভূক্তির জন্য অনলাইনে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়। কিন্তু আজো কোন সুফল পাওয়া যায়নি। এদিকে উদ্যোক্তারা ক্রমেই হতাশ হয়ে পড়ছেন। একাডেমির প্রতিষ্ঠা লাভের আশায় তারা অন্যকোথাও চাকুরীর চেষ্ঠা করেন নাই।

 

আরও জানা যায়, একাডেমিটিতে মোট- ২০৪ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের মধ্যে ৮০ জন অটিস্টিক ও ১২৪ জন বিভিন্ন প্রকার প্রতিবন্ধী। শিক্ষক-শিক্ষিকা আছেন ২৪ জন। এ ছাড়া অফিস সহকারী, সহায়ক, আয়া, নৈশ প্রহরী সব মিলিয়ে আরো ২৫ জন কর্মচারী কর্মরত আছেন। কারো কোন-বেতন বা সম্মানী নেই। অপেক্ষার প্রহর গুনছে সরকারি অনুমোদনের । প্রতিষ্ঠানটির সাথে জড়িত সবাই সংশ্লিষ্ট মহলের সুদৃষ্টি কামনা করছেন ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো কিছু জনপ্রিয় সংবাদ
  • © All rights reserved © 2022 Channel21tv.Com
Design & Development By Hostitbd.Com