1. admin@channel21tv.com : channel21tv.com :
শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন

ঐতিহ্যময় বারহাট্টা উপজেলা :

রিপন কান্তি গুণ, বারহাট্টা উপজেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১৫৮ বার পঠিত

বারহাট্টা উপজেলার অবস্থান :

বারহাট্টা উপজেলা  নেত্রকোণা জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা ।  বারহাট্টা উপজেলার উত্তরে কলমাকান্দা ও ধর্মপাশা উপজেলা, দক্ষিণে আটপাড়া ও মোহনগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে মোহনগঞ্জ ও ধর্মপাশা উপজেলা, পশ্চিমে নেত্রকোণা সদর উপজেলা।আয়তনের দিক দিয়ে উপজেলাটি ২২১.৫০ বর্গ কিমি।  নেত্রকোণা জেলা শহর থেকে এর দুরত্ব ১৫ কিলোমিটার প্রায়।

 

প্রশাসনিক এলাকা

বারহাট্টা উপজেলায় বর্তমানে ৭টি ইউনিয়ন রয়েছে। সম্পূর্ণ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম বারহাট্টা থানার আওতাধীন।

 

ইউনিয়নসমূহ:

 

ইতিহাস

১৫ই জুন, ১৯০৬ সালে বারহাট্টা থানাপ্রতিষ্ঠা লাভ করে।এবং ১৯৮৩ সালের ২ জুলাই বারহাট্টাকে উপজেলায় রুপান্তর করা হয়।


মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি  : ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে পাকবাহিনীর গতিরোধ করার লক্ষ্যে মুক্তিবাহিনী উপজেলার পশ্চিম সীমান্তের ঠাকুরকোণা রেলওয়ে ব্রীজটি মাইন বিস্ফোরণ ঘটিয়ে বিধ্বস্ত করে। মুক্তিযুদ্ধের শেষের দিকে এ উপজেলাকে পাকবাহিনীমুক্ত করার লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধারা থানা আক্রমণ করে এবং উভয়পক্ষের ব্যাপক গুলিবিনিময়ের ফলে কয়েকজন বেসামরিক লোক নিহত হয়। ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর বারহাট্টা উপজেলা শত্রুমুক্ত হয়।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মুকশেদ মিয়ার স্মৃতি রক্ষার্থে বারহাট্টা হতে চন্দ্রপুর গ্রাম পর্যন্ত রাস্তাটির নামকরণ হয় ’শহীদ মুকশেদ সড়ক’।

 

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: মসজিদ ১৬৪, মন্দির ৬৫, মাযার ৬।

 

নামকরণ :

বারহাট্টা উপজেলার নাম করনের সময়কাল অনুমান করা হয় ১৮শ শতকের শুরু এবং ১৭শ শতকের শেষ পর্যায়কে। অনেক ঐতিহাসিক মনে করেন পাগলপন্থি আন্দোলনের নেতা টিপু শাহ্‌ কে শায়েস্তা করার জন্যই নাটেরকোনা নেত্রকোনার তৎকালীন নাম অঞ্চলে ঘাঁটি বসায় ইংরেজরা। আন্দোলনকারীদের অনেকেই বারহাট্টার বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করলে নৌ পথের সুবিধার জন্য বারাহট্টা বাজারের পার্শ্ববর্তি বরোহাটি/বরুহাটি/বৌহাটি গ্রামের আদূরে সেনা ছাউনী ফেলে। কংস নদীর তীরবর্তী বরুহাটি গ্রামের অনুকরনে BRA-HATTA উচ্চারণ করতেন সেনারা। তার থেকেই আস্তে আস্তে লোক্মুখে বারহাট্টা নামটি প্রচলিত হতে থাকে। অফিস আদালতে বাংলা উচ্চারণ বারহাট্টা থেকে ইংরেজী BARHATTA করা হলেও একমাত্র বারহাট্টা রেলস্টেশন নাম ফলকে BRAHATTA উল্লেখ করা আছে।

 

জনসংখ্যার উপাত্ত :

জনসংখ্যা ১৫৮১৩৩; পুরুষ ৮১০২৬, মহিলা ৭৭১০৭। মুসলিম ১৩৮৭১৫, হিন্দু ১৯২৬৮, বৌদ্ধ ২১ এবং অন্যান্য ১২৩।

 

নদ-নদী

বারহাট্টা উপজেলা কংশ নদের তীরে অবস্থিত।উপজেলার অধিকাংশ এলাকা একসময় খাল-ছোট নদী দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকলেও এখন উপজেলা শহরের পাশ দিয়ে বয়ে চলা কংস নদ সহ বাকিগুলাও মৃত প্রায়। বারহাট্টা উপজেলার উল্লেখযোগ্য নদী কংশ। এছাড়াও বিষনাইল, ধনাইখালী, লারখালী, গোলামখালী রাঙ্গাধাইর, কাউনাই, গোরাউৎরা, ধালেশ্বরী প্রভৃতি। নদীগুলো কালে ভরাট হয়ে মরা নদী বা বিলুপ্ত নদীতে পরিণত হয়েছে। কাংশ নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে গোলামখালী নদীর সঙ্গে একাকার হয়ে গেছে।

 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান :

বারহাট্টা উপজেলায় ৩ টি কলেজ রয়েছে। 

  • বারহাট্টা সরকারি কলেজ
  • বাউসী অর্ধচন্দ্র (স্কুল এন্ড কলেজ)
  • ফকির আশরাফ কলেজ,

স্কুল সমূহঃ

  • বারহাট্টা সিকেপি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়
  • কাশবন উচ্চ বিদ্যালয়
  • অতিথপুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • কিশলয় শিশু নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়

 

হাট- বাজার : 

হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ১৪, মেলা ২। গোলপুর বাজার, বাউসী বাজার, গেরিয়া বাজার, নৈহাটি বাজার, নিচিন্তপুর বাজার ও মনাষ বাজার এবং অষ্টমীতিথি মেলা উল্লেখযোগ্য।

 

বিদ্যুৎ ব্যবস্থা :

বিদ্যুৎ ব্যবহার এ উপজেলার সবক’টি ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ১১.৯৭% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

 

                    উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব :

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো কিছু জনপ্রিয় সংবাদ

  • © All rights reserved © 2021 Channel21tv.Com
Design & Development By Hostitbd.Com