1. admin@channel21tv.com : channel21tv.com :
বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

৬ নং জিউপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে মানববন্ধন।

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৩০৭ বার পঠিত

রাজশাহী জেলা পুঠিয়া উপজেলা ৬ নং জিউপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে মানববন্ধনের খবর পাওয়া গেছে।

সরোজমিনে গিয়ে প্রমাণ পাওয়া গেছে এটা সম্পূর্ন মিথ্যা বানোয়াট এবং নাটকীয়।

মানববন্ধন প্রধান দায়িত্বে ছিলেন মো: কামরুল ইসলাম (২৭) ৬ নং জিউপাড়া ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক তিনি। তিনি অভিযোগ করেছেন যে ৪০০ টাকার রিসিভ দিয়ে তার কাছ থেকে ১২০০ টাকা নেয়া হয়েছে। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে তার কোন প্রমাণ হয়নি। বরং তিনি মোট ১০ টি সার্টিফিকেটের জন্য সুপারিশ নিয়ে যাওয়াই তার এই ১২০০ টাকা হয়েছে।
ইউপি পরিষদ এর নিয়ম অনুযায়ী ইউপি সচিব সাহেবে বক্তব্য যদি কোন মৃত ব্যক্তির ডিজিটাল সার্টিফিকেট নিতে হয়। তাহলে তাকে সর্বপ্রথম ডিজিটাল জন্ম সনদ অবশ্যই নিতে হবে।

মো :কামরুলের যে ১০ টি সার্টিফিকেটের সুপারিশ তার বিবরণ : সাল সংশোধন ৪টি, ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন ৩টি, মৃত্যু সনদ ২টি, একই নামের পূর্বের ডিজিটাল ২ টি । এই নিয়ে মোট ১০টি সুপারিশ নিয়ে তিনি উপস্থিত হন।
এদের সবার নামের তালিকা( ১) জন্ম সাল সংশোধন: মোঃ শামসুল আলম মোছা: বিউটি বেগম মোছা: শামসুন্নাহার মোঃ হোসেন আলী।
(২) জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল করন: মোঃ জুনায়েদ হোসেন ও মোছা: জ্যোতি খাতুন( ৩) মৃত্যু সনদ : মৃত শামসুন্নাহার এবং মৃত হোসেন আলী।
(৪) : একই নামের পুর্বের ডিজিটাল: মৃত শামসুন্নাহার ও মৃত হোসেন আলী।

মানববন্ধনে আরেকজন অভিযোগকারী মো: আব্দুস সালাম( ৩৫)পিতা: মৃত: দুদুমিয়া। ইনার অভিযোগ ছিল তার ছেলের জন্ম সনদ পেটে ৪০ থেকে ৪৫ দিন তাকে অপেক্ষা করতে হয়েছে। এ বিষয়ে চেয়ারম্যান এবং ইউপি সচিব উভয়ের উক্তি যথাযথ কাগজপত্র জমা না দেওয়ার কারণে তাকে এই ৪০ থেকে ৪৫ দিন অপেক্ষা করতে হয়েছে।

তারা উভয়ে অভিযোগ করেছে সরকারি রশিদের উল্লেখিত টাকার চেয়ে বেশি টাকা নেওয়া হয়। এবং সেই টাকা ইউপির উদ্যোক্তা মোছা: ববি খাতুন এবং মো: ওয়াসিম মোল্লা জোরপূর্বক আদায় করেন। এ বিষয়ে ববি এবং ওয়াসিম কে জিগ্গেস করলে তারা দুজনেই এ বিষয় অসিকার করেন। পরে ৬ নং জিউপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ এর চেয়ারম্যান মোছা: হোসনেয়ারা বেগম এর সাথে সাক্ষাৎ এ কথা হলে তিনি জানিয়েছেন অতিরিক্ত কারো কাছ থেকে কনো টাকা নেওয়া হয় না। এবং আমি স্বাক্ষর করি, আর স্বাক্ষর এর আগে প্রতিটা রিসিভ দেখে এরপর স্বাক্ষর করি। তাহলে আমাকে না জানিয়ে তারা অতিরিক্ত টাকা কেন দিবে? এবং চেয়ারম্যান আরও জানিয়েছেন এগুলো অভিযোগ সব মিথ্যা, বানোয়াট এবং ষড়যন্ত্রমূলক যার কনো ভিত্তি নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো কিছু জনপ্রিয় সংবাদ

  • © All rights reserved © 2021 Channel21tv.Com
Design & Development By Hostitbd.Com